Ticker

6/recent/ticker-posts

Adsterra

১৩টি প্যাকেই দ্রুত বৃদ্ধি পাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা !

১৩টি প্যাকেই দ্রুত বৃদ্ধি পাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা :

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়
ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির খাবার

সুন্দর, উজ্জ্বল ও মখমলের মতো ত্বক(skin) তাও বা বাড়িতে বসে! এটি অবাক করা বিষয় না! এই অসম্ভবকে সম্ভব করার উপায় নিয়ে এবারের বিবৃতি। ত্বকের প্রতি যত্ন নেওয়া কি চাট্টিখানি কথা! 

মুখ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, প্রতিদিন স্ক্রাব ব্যবহার করাতো রয়েছে। Face packs, moisturizers, toners ইত্যাদি হাজারও রকমের প্রডাক্টের ঝামেলা। কিন্তু যদি কাজের কাজ হয়, তাহলে এই পরিশ্রমটুকু করে নিতে হয়তো অনেকেই দ্বিধা-বোধ করবেন না। 

শরীরের যেমন বিভিন্ন ধরণের কাজ করতে একটা নির্দিষ্ট সময় পরপর খাবারের প্রয়োজন হয়, তেমনই ত্বকেরও সুন্দর-সুস্থ, উজ্জ্বল থাকার জন্য খাবার বা পুষ্টির প্রয়োজন হয়। ত্বকের পুষ্টির মধ্যে যদি কোনো ঘাটতি না থাকে, তাহলে তার পরিচয় আপনার মুখে ফুটে উঠতে বাধ্য হতে হবে।

এখন নিশ্চয়ই ভাবছেন, ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির খাবারগুলো কি কি?

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় ও ইনস্ট্যান্ট জেল্লা

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়
ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

এবার আসি তাদের কথায়, যারা সাপ্তাহিক রূপচর্চায় বিশ্বাসী। এই রকমের লোকের সংখ্যাই কিন্তু আজকাল অনেক অনেক বেশি। ৫ মিনিটেই ত্বকের জেল্লা বাড়ানো গেলে, আর দিনের পর দিন পরিশ্রম করতে যাবেনই বা কেন! instant ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য একাধিক ফেইস প্যাক ব্যবহার করতে পারেন।

প্রতিদিন ত্বকের যত্ন বা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করলে যে ফলটা পাবেন, তা কিন্ত ইনস্ট্যান্ট প্যাকে আসবে না। আবার তা দীর্ঘস্থায়ী হবে না। তবে সময়ের অভাব থাকলে উপায় তো আর কিছু নেই। সবার ত্বকই ভিন্ন হয়ে থাকে। 

আপনার ত্বকের জন্য যে প্যাকটি সঠিক ও উপযুক্ত মনে করবেন, সেটাই বেছে নিবেন। আজকে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে ১৩টি সহজ প্যাক বানানো শিখিয়ে দিচ্ছি। প্রতিদিন এই প্যাকগুলো ব্যবহার করলে ত্বকের অনেক অনেক উপকার হবে।

আসুন তবে আর দেরি না করে ত্বকে ইনস্ট্যান্ট গ্লো আনার ঘরোয়া রূপচর্চা টিপসসমূহ শিখে নেওয়া যাক।

১. মধু

ত্বকের যত্নে মধু প্রাচীনতম কাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে। মধু ত্বককে উজ্জ্বল করে ও ত্বককে moisturizers ও করে। অল্প পরিমাণে মধু নিয়ে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। তারপর হালকা গরম জল দিয়ে ভালোভাবে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এরপরই দেখবেন ত্বক অনেক ফ্রেস লাগবে। 

ধীরে ধীরে ত্বক উজ্জ্বল হবে। মধু anti-bacterial হিসাবেও কাজ করে থাকে। ত্বকের মৃত কোষ সরিয়ে নতুন কোষ জন্মাতে সহায়তা করে। আবার ত্বকের অন্যান্য দাগ দূর করতে সহায়তা করে।

২. হলুদ

১ থেকে ২ চা-চামচ হলুদের গুঁড়ো এবং ৪ চা-চামচ বেসন সঠিক পরিমাণে দুধ দিয়ে গুলে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। মুখে মধ্যে ও গলায় এই প্যাক লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে ভালোভাবে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

হলুদের মধ্যে থাকা ত্বকের উপকারী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকায় এই প্যাকটি ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সহায়তা করবে। সপ্তাহে দু’বার হলুদের ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন।

৩. গাজর

গাজর ঝিরি ঝিরি বা কুঁচি কুঁচি করে কেটে নিয়ে রস বের করে নিন। গাজরের রস মধ্যে অল্প পরিমাণে মধু এবং সামান্য পরিমাণ টকদই মিশিয়ে মুখে লাগাতে পারেন। মুখে লাগানোর ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

গাজরে আছে ভিটামিন-এ যা ত্বক টানটান রাখতে সহায়তা করে। ফলে ত্বক মসৃণ ও সুন্দর থাকে। সপ্তাহে ১ বার গাজরের ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করলেই যথেষ্ট।

৪. টকদই 

অনেকেই জানি, টক দই ত্বককে উজ্জ্বল করে।  টকদই আছে ল্যাকটিক জাতীয় অ্যাসিড যা ত্বককে উজ্জ্বল করতে সহায়তা করে এবং ত্বককে নরম রাখে। অল্প করে টকদই নিয়ে নরম হাতে নিয়ে মুখে ম্যাসাজ করবেন। 

তারপর হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করে ফেলুন।  প্রতিদিন করলে নিজেই নিজের মুখের পরিবর্তন বুঝতে পারবেন।

৫. অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরার উপকারিতা সম্পর্কে কম-বেশি সবাই জানি। ১ চামচ অ্যালোভেরা জেল, ১ চামচ মধু এবং ১ চামচ দুধ একসাথে মিশিয়ে মুখে মধ্যে লাগান। ২০ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ভালেভাবে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বক নরম থাকলে এবং ত্বকে আর্দ্রতার বা শুষ্কতার পরিমাণ ঠিক থাকলে ত্বক এমনিতেই স্বাস্থ্যোজ্জ্বল বা সুন্দর দেখাবে।

৬. বেকিং সোডা

১ চা-চামচ বেকিং সোডা, ১ টি ডিমের কুসুম, ১ চামচ মধু এবং আধা চামচ অলিভ অয়েল একসাথে মিশিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিলেই পার্থক্য দেখতে পাবেন।

ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে এবং ত্বকের পিএইচ লেভেল ঠিক রাখতে বেকিং সোডা গুরুত্বপূর্ণ।

৭. পাতিলেবু

১ চামচ পাতিলেবুর রস ও ১ চামচ চিনি মিশিয়ে সার্কুলার মোশনে ত্বকে ম্যাসেজ করুন। আলতোভাবে ম্যাসেজ করুন। চিনি গলে গেলে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। পাতিলেবু ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করে ত্বককে পরিষ্কার রাখে। ফলে ত্বকের উজ্জ্বলতাও বৃদ্ধি পায়।

৮. শসা

শসা ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বককে উজ্জ্বল ও সুন্দর করতেও সাহায্য করে। শসার কিছু কিছু উপাদান আছে, যা ত্বকের মেলানিন কম করে থাকে। যা ত্বককে ফর্সা উজ্জ্বল হতে সহযোগিতা করে। শসা খুবই ঠাণ্ডা, যা ত্বককে অনেকটাই ফ্রেস রাখে এবং চোখের নীচের কালো দাগ দূর করতে বেশ সহায়তা করে।

৯. পেঁপে

১ টেবিল চামচ পাকা পেঁপের সাথে ২ চামচ শসা রস ও অর্ধেকট কলা চটকে মিশিয়ে মুখে মধ্যে লাগান। ২০ মিনিট রেখে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকের চটজলদি জেল্লা আনতে পেঁপে প্যাক কার্যকরী। ভিটামিন-এ, সি এর অন্যতম প্রধাণ উৎস হলো পেঁপে। পেঁপেতে আছে BHA যা ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে সহায়তা করে।

১০. গ্রিন টি

১ কাপ বা গ্লাস জলে ২ চামচ গ্রিন টি দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিয়ে ছেঁকে নিন। ২ চামচ এই গ্রিন টি লিকারে ১ চামচ brown সুগার এবং আর্ধ চামচ মিল্ক ক্রিম মিশিয়ে মুখে লাগাবেন। সার্কুলার মোশনে আলতো ভাবে ঘষে ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা জল দিয়ে ভালো করে মুখ ধুয়ে নিন।

শরীরের toxins দূর করতে গ্রিন টি খুবই উপকারী, আবার ত্বকের টক্সিন দূর করে ত্বক ভেতর থেকে পরিষ্কার করতেও গ্রিন টি অনেক উপকারী।

১১. গোলাপজল

গোলাপজল ২০ মিনিট ফ্রিজে রেখে দিন। গোলাপজল ফ্রিজ থেকে বের করে তুলো ডুবিয়ে মুখে চেপে চেপে লাগান। প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যাতে গোলাপজল ব্যবহার করতে পারেন। ভালো ফলই পাবেন।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে গোলাপজল যথেষ্ট উপকারী। গোলাপজল ত্বকের আর্দ্রতাও ঠিক রাখতে সহায়তা করে।

১২. কেশর 

১ টেবিল চামচ দুধ ও ১ চামচ মধুতে কয়েকটা কেশর ৩০ মিনিট ফেলে রাখুন । এই মিশ্রণটি মুখের মধ্যে লাগিয়ে ১০ মিনিট রেখে দিয়ে তারপর ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। প্যাকটি সপ্তাহে ৩/৪ বার  ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য কেশর খুবই ভালো একটি উপাদান। কেশর ব্যবহারের ফলে ত্বকে নিমেষে জেল্লা আসে।

১৩. কমলালেবুর খোসা

১ চামচ কমলালেবুর খোসা গুঁড়োর সাথে ১ চামচ গোলাপজল একসঙ্গে মিশিয়ে স্ক্রাব হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন।কমলালেবু খোসায় ভিটামিন সি-তে পূর্ণ থাকায় ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে কার্যকরী।

তাহলে জেনে নিলেন যে, কিছু কিছু উপাদান ব্যবহার করে সত্যিই উজ্জ্বল ও ফর্সা ত্বক পাওয়া সম্ভব। তাই আজ থেকেই ট্রাই করা শুরু করা করুন।

আরও পড়ুন। মুখের ব্রণ দূর করার ঘরোয়া উপায়

Post a Comment

2 Comments

Don't Share Any Link